প্রচ্ছদ > আন্তর্জাতিক >

ফিলিস্তিনিদের অস্ত্র ঘুড়ি আর বেলুন!

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ | 15 July, 2018
img

ধরুন, আকাশে একটা ঘুড়ি উড়ছে। হয়তো বাচ্চাদের জন্যে তাদের সঙ্গে করে বানিয়েছেন এটা। দারুণ আনন্দের একটা কাজ ঘুড়ি ওড়ানো। ওই ঘুড়ির লেজটা শুধু জ্বলছে। অস্বাভাবিক বটে।

ইসরায়েলী আগ্রাসন রুখতে কিছু ‘অস্বাভাবিক অস্ত্র’ ব্যবহার করছে ফিলিস্তিন। ধাতব আগ্নেয়াস্ত্র নয়, ‘আগুনে ঘুড়ি’ আর ‘বেলুন’ ব্যবহার করছে তারা। ফিলিস্তিনিরা এখন ইসরায়েলের আকাশে এমনই কিছু অস্ত্র ছুঁড়ছে।

এগুলো অস্ত্র কীভাবে হচ্ছে? আগুনসহ ঘুড়ি কোনো ফসলী ক্ষেত্রে পড়ামাত্র আগুন ধরে যাচ্ছে। ক্ষেতে সেই আগুন ছড়াচ্ছে মুহূর্তে।

বিবিসি’র এক প্রতিবেদনে বলা হয়, গাজার ফিলিস্তিন বিদ্রোহী বাহিনী ইসরায়েল আক্রমণে এমনই কিছু অস্ত্র ব্যবহার করছে।

কিবুৎজে ইতিমধ্যে সন্ত্রাসীদের টানেলসহ মিসাইল ও আক্রমণ রুখে দিয়েছি আমরা। তবে বিগত তিন মাস ধরে আমরা নতুন ধরনের হুমকির মুখে পড়েছি। আগুনে ঘুড়ি আর আগুনে বেলুন। এসব কথা বললেন কিবুৎজ নাহাল ওজ-এ বসবাসরত ইয়েল রাজ-লাচিয়ানি। গাজা সীমান্ত থেকে ৭০০ মিটার দূরেই তার বাস।

তিনি আরো বলেন, নাহাল ওজ-এ আমাদের জীবন অনেক সুন্দর। আমাদের সমাজ অসাধারণ। কিন্তু গাজা সীমান্তের খুব নিকটবর্তী হওয়াতে আমাদের নিরাপত্তা কিছুটা হুমকির মুখে রয়েছে। ইতিমধ্যে ফিলিস্তিনদের এই আগুনে অস্ত্র আমাদের অঞ্চলে পাঁচ শতাধিক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটিয়েছে। অনেক সময় কনডম ফুলিয়ে বিশাল বেলুন বানানো হচ্ছে। কারণ এগুলো সহজে নষ্ট হয় না।

এ ধরনের আক্রমণে ৬ হাজার একরের বেশি ভূখণ্ড নষ্ট হয়েছে। ফসলী ক্ষেতে এই আগুন হু হু করে ছড়ায়। নাহাল ওজ-এ ২৫০ একর গম পুড়ে গেছে। প্রায় ২ মিলিয়ন ডলারের ক্ষতি হয়েছে। সম্প্রতি গাজা সীমান্তে ইসরায়েলী হামলায় ১২০ জন ফিলিস্তিনির মৃত্যুর পর ঘুড়ি আর বেলুন দিয়ে এমন হামলা শুরু হয়েছে।

প্রতিদিন একটি-দুটি হামলার ঘটনা ঘটছে। সফলতার পর থেকে এটি আক্রমণের কার্যকর উপাদান হয়ে উঠেছে। যদি দিনে তারা ১০, ২০ বা ৩০টি হামলা চালায়, তবে বিষয়টি বেশ ভয়ংকর হয়ে ওঠে।